আয়কর না দিলে পেতে হবে শাস্তি

বছরে আপনি ব্যক্তিগত যে আয় করেন, এর একটি ভাগ সরকারকে দিতে হবে। একে আয়কর বলা হয়। আয়কর না দিলে শাস্তির বিধান আছে। নিয়মিত আয়কর না দিলে রাষ্ট্রের অনেক সুযোগ-সুবিধা থেকেও বঞ্চিত হতে হয়। আয়কর প্রদানের ক্ষেত্রে কিছু নিয়মকানুন মানতে হয় এবং জানতেও হয়। নইলে আয়কর দেওয়ার ক্ষেত্রে হতে পারেন জটিলতার সম্মুখীন।

আয়কর কর্তৃপক্ষের কাছে একজন করদাতার বার্ষিক আয়ের সংক্ষিপ্ত বিবরণ উপস্থাপন করার মাধ্যম হচ্ছে আয়কর রিটার্ন। আয়কর আইন অনুযায়ী জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্ধারিত ফরমে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হয়। বর্তমান অর্থবছর থেকে কোনো ব্যক্তি করদাতার আয় যদি বছরে ৩ লাখ  টাকার বেশি হয়, তবে তাঁকে রিটার্ন দিতে হবে। নারী এবং ৬৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সের পুরুষ করদাতার আয় যদি বছরে ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার বেশি, প্রতিবন্ধী করদাতার আয় যদি বছরে ৪ লাখ টাকার বেশি এবং গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা করদাতার আয় যদি বছরে ৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার বেশি হয়, তাহলে তাঁকে রিটার্ন দিতে হবে।

তবে আয়ের পরিমাণ যা-ই হোক না কেন, কিছু ব্যক্তির ক্ষেত্রে রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক—১. আয় বর্ষে করযোগ্য আয় থাকলে; ২. আয়বর্ষের পূর্ববর্তী তিন বছরের যেকোনো বছর করযোগ্য আয় নিরূপিত হলে; ৩. সিটি করপোরেশন অথবা বিভাগীয় ও জেলা শহরের পৌরসভায় বসবাসকারীদের: ক. একটি গাড়ির মালিক হলে; খ. মূল্য সংযোজন কর আইনে নিবন্ধিত কোনো ক্লাবের সদস্য হলে;

৪. সিটি করপোরেশন, পৌরসভা অথবা ইউনিয়ন পরিষদে ব্যবসা পরিচালনার জন্য ট্রেড লাইসেন্স ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকলে; ৫. চিকিৎসক, দন্ত চিকিৎসক, আইনজীবী, আয়কর আইনজীবী, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট, কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্ট, প্রকৌশলী, স্থপতি, সার্ভেয়ার অথবা সমজাতীয় পেশায় নিয়োজিত সব ব্যক্তি; ৬. চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ অথবা কোনো বাণিজ্য সংগঠনের সব সদস্য; ৭. পৌরসভা, সিটি করপোরেশন অথবা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব পদপ্রার্থী; ৮. সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা অথবা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের ঠিকাদারি কাজে টেন্ডারে অংশগ্রহণকারী সব ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান।

কর পরিশোধ না করার শাস্তি
করদাতাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়ার লক্ষ্যে আবশ্যিকভাবে ধারা -১৩০ মোতাবেক নোটিশ প্রদান সাপেক্ষে খেলাপী করদাতার সর্বশেষ আরোপিত আয়করের ১০ % অথবা কমপক্ষে ১,০০০ টাকা ও পরবর্তী প্রতি খেলাপী দিবসের জন্য ৫০ টাকা, উপ-কর কমিশনার জরিমানা আরোপ করতে পারবেন।

তবে অর্থ আইন ২০১৫ এর মাধ্যমে সংযোজিত প্রভাইরসো মোতাবেক কোন ব্যক্তিকরদাতা, যাহার আয়ের উপর ইতোপূর্বে কখনো কর আরোপিত হয় নাই, তাঁহার ক্ষেত্রে আরোপযোগ্য মোট  জরিমানার পরিমান ৫০০০ টকার বেশি হইবে না।

আর কোন ব্যক্তি- করদাতা, যাহার আয়ের উপর ইতোপূর্বে কর আরোপিত হইয়াছে এমন কোন পুরানো ব্যক্তি করদাতার ক্ষেত্রে এইরূপ জরিমানার পরিমাণ তাঁহার সর্বশেষ নিরূপিত আয়ের উপর ধার্যকৃত করের ৫০ % বা ১০০০ টাকা, দু’টির মধ্যে যেটি বেশি তাহার বেশি হইবে না।