জীবন বীমার সুবিধা

জীবন মানেই ঝুঁকি।জীবনের এই ঝুঁকি কমাতে সবারই জীবন বীমা করার উচিৎ।তাই যার যতটুকু সামর্থ্য সেই অনুযায়ী বীমা করে ঝুঁকি কমাতে পারেন।অর্থাৎ কেউ কেউ একটি, আবার কেউ একাধিক বীমা করতে পারেন।

জীবন বীমার সুবিধাগুলো হচ্ছে-ধারের জীবন থেকে ভবিষ্যৎ মুক্তি,দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য পূরণ,আয়করের হাত থেকে কষ্টার্জিত টাকা বাঁচানো,আয় অনুযায়ী বীমা এব্ং নিজের ইচ্ছামতো টাকা ফেরত ইত্যাদি।

ধারের জীবন থেকে ভবিষ্যৎ মুক্তি :- আমাদের হাতে সবসময় টাকা থাকে না। কিন্তু আপনি যদি জীবন বীমা করিয়ে রাখেন তাহলে আপনার ভবিষ্যতের জন্য এক নিশ্চিত সঞ্চয় হতে থাকবে। আর পরে বার্ধক্যের সময় তা আপনি ব্যবহার করতে পারবেন। অৰ্থাৎ জীবনবীমা বার্ধক্যের সময় আপনার সাথী হয়ে দাড়াবে। আর আপনার ভগবান না করুক কিছু খারাপ ঘটলেও জীবনবীমা থাকাকালীন  আপনার পরিবার পাবে আর্থিক ক্ষতিপূরণ।আর তার ফলে তাদের সংসারের খরচ চালাতে অসুবিধা হবে না কোনোদিন।তাই জীবনবীমা না থাকলে আজই করান জীবন বীমা।

দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য পূরণ :- অনেকের ধারণা জীবনবীমা করা হলে জীবিত অবস্থায় ব্যাঙ্কের চেয়ে তাতে কোনও বাড়তি আর্থিক সুবিধা পাওয়া যায় না। কিন্তু আপনি যদি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করে প্রথম থেকে সেই অনুযায়ী  জীবনবীমা করেন তাহলে ভবিষ্যতে আপনার লক্ষ্য অবশ্যই পূর্ণ হবে। আর তার জন্য আপনাকে বেছে নিতে হবে নির্দিষ্ট আর্থিক সুবিধার পলিসি টার্ম।

আয়করের হাত থেকে কষ্টার্জিত টাকা বাঁচানো :- আমাদের মধ্যে অনেকেই আছি যারা ইনকাম ট্যাক্সের আওতায় পড়েছি। আর বীমা করার মস্ত একটা সুবিধা হল, এই বীমার মাধ্যমে আপনি যেমন মাসিক বা ত্রৈমাসিক, ষান্মাসিক ও বাৎসরিক অনেকটা টাকা যেমন জমাতে পারেন তার সাথে আপনি আপনার অনেকটা টাকা আয়করের হাত থেকে বাঁচতে পারেন। তাই আপনি যদি চাকুরিজীবি বা ব্যবসায়ী যাই হোক না কেন অবশ্যই করুন জীবনবীমা।

আয় অনুযায়ী বীমা :- জীবন বীমার রেঞ্জ অনেক বিশাল। এখানে যেমন আপনি পাবেন ন্যুনতম মূলধনের টাকার পলিসি, তেমনই আপনি আপনার আর্থিক সামর্থ্য অনুযায়ী বড়ো মাপের আর্থিক সুবিধা যুক্ত পলিসি গ্রহণ করতে পারেন। বিভিন্ন সরকারি কোম্পানির সাথে সাথে বেসরকারি কোম্পানির নানা পলিসি আজ খবরের শিরোনামে। এক বছর বয়সের শিশু থেকে বার্ধক্য বয়সের প্রবীণ নাগরিকদের জন্য পাবেন নানান বীমা। তাই সবার ভবিষ্যৎ আর্থিক সুবিধা সম্পন্ন করতে পারেন। নানান টার্ম, নানান কভারেজ  ও নমিনীযুক্ত জীবনবীমা পাওয়া যায় এখন। তাই আপনার পছন্দের জীবনবীমা গ্রহণ করুন।

নিজের ইচ্ছামতো টাকা ফেরত :- আপনি হয়তো ভাবেন ব্যাঙ্কে টাকা রাখলে তা নির্দিষ্ট সময় অন্তর টাকা তুলে নিতে পারবেন সুদসহ। কিন্তু বীমার ক্ষেত্রে সেরকম সুবিধা পাওয়া যায় না বলেই অনেকের ধারণা। কিন্তু বর্তমানে অনেক জীবনবীমাতে মানি ব্যাক পলিসিও করা যায়, যার মাধ্যমে আপনি আপনার পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময় অন্তর টাকা তুলে নিতে পারবেন। আর এইভাবেই জীবনবীমা আপনাকে দেয় আপনার জমানো টাকার উপযুক্ত মূল্য।